গ্যাস সিলিন্ডার

রান্নাঘরেই যেন মৃত্যুদূত!

রান্নাঘরেই যেন মৃত্যুদূত!
নতুন সিলিন্ডার নির্দিষ্ট স্থানে স্থাপন করার আগে সিলিন্ডারের মুখে কাগজে মোড়ানো সিল আছে কিনা, তা দেখতে হবে। এবার সিল সরিয়ে প্রেশার রেগুলেটরের ওপর সংযোগ ক্লিপ লাগাতে হবে। সুইচ অন করে দেখতে হবে ক্লিপের সঙ্গে রেগুলেটর ঠিকঠাকভাবে লেগেছে কিনা। এসব কাজ দক্ষ বা পারদর্শী লোক দিয়ে করিয়ে নিতে হবে।

রাসেল তিথী দম্পতির বাসায় প্রাকৃতিক গ্যাসের লাইন নেই। তাই প্রথমে লিকুইড পেট্রোলিয়াম গ্যাস (এলপিজি) সিলিন্ডার ব্যবহার করা নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্ব ও আতঙ্ক অনুভব করেন তাঁরা। মনে করেন রান্নাঘরেই যেন মৃত্যুদূত। রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে গ্যাস সিলিন্ডার দুর্ঘটনাই তাঁদের আতঙ্কের প্রধান কারণ। নিচের সতর্কতা ও নিয়ম মেনে সিলিন্ডার দুর্ঘটনার ঝুঁকি এড়িয়ে সর্বোাচ্চ নিরাপত্তায় ঝটপট রান্নার কাজ সারা যায় সহজেই। 


এলপিজি সিলিন্ডার স্থাপন-
নতুন সিলিন্ডার নির্দিষ্ট স্থানে স্থাপন করার আগে সিলিন্ডারের মুখে কাগজে মোড়ানো সিল আছে কিনা, তা দেখতে হবে। এবার সিল সরিয়ে প্রেশার রেগুলেটরের ওপর সংযোগ ক্লিপ লাগাতে হবে। সুইচ অন করে দেখতে হবে ক্লিপের সঙ্গে রেগুলেটর ঠিকঠাকভাবে লেগেছে কিনা। এসব কাজ দক্ষ বা পারদর্শী লোক দিয়ে করিয়ে নিতে হবে। 


দুর্ঘটনা এড়াতে সতর্কতা ও করণীয়-
১. রান্নার জায়গা যেন আলো-বাতাসযুক্ত এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকে। রান্নাঘরের জানালা সব সময় খোলা রাখতে হবে। 
২. মানসম্মত রাবার টিউব অথবা হোস পাইপ ব্যবহার করতে হবে।
৩. রাবার টিউব অথবা হোস পাইপে সাবানের ফেনা লাগিয়ে লিকেজ চেক করতে হবে।
৪. এলপিজি সিলিন্ডার যদি অব্যবহৃত থাকে অথবা গ্যাসহীন অবস্থায় থাকে, তাহলে রেগুলেটরের নব বন্ধ করে রাখতে হবে।
৫. চুলার পাশে আগুনের উৎস থেকে কমপক্ষে২-৩ মিটার দূরত্বে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন জায়গায় সিলিন্ডার রাখুন।
৬. রান্না শেষে রেগুলেটরের সুইচ ঠিকঠাকভাবে বন্ধ করতে হবে।
৭. সিলিন্ডার ভর্তি থাকার সময় সেফটি ক্যাপ ব্যবহার করা উচিত।
৮. সিলিন্ডার শিশুদের নাগালের বাইরে রাখতে হবে।
৯. অনুমোদিত ডিলার বা সরবরাহকারীর কাছ থেকে এলপিজি সিলিন্ডার কিনতে হবে।
১০. সংশ্লিষ্ট কাজে অভিজ্ঞ ও দক্ষ ব্যক্তি দিয়ে সিলিন্ডার স্থাপন করে নিতে হবে।
যা করবেন না
১. সব সময় সিলিন্ডার সোজা বা খাড়া করে রাখতে হবে। কোনো অবস্থায় সিলিন্ডার বাঁকা বা শুইয়ে রাখা যাবে না।
২. টিউব, রেগুলেটর কিংবা অন্য কোনো অংশ লিকেজ হয়েছে কিনা, তা চেক করতে কখনো দেশলাইয়ের কাঠি বা লাইটার অথবা আগুন জ্বালানো যাবে না।
৩. সরাসরি সূর্যের তাপ পড়ে এমন স্থানে সিলিন্ডার রাখা যাবে না।
৪. সিলিন্ডার ও চুলার সংযোগ পাইপের সঙ্গে কোনো কিছু প্যাঁচানো যাবে না।
৫. একটি সিলিন্ডার থেকে একাধিক সংযোগ দেওয়া যাবে না।
৬. নিম্নমানের যন্ত্রাংশ ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকতে হবে।
৭. গরম টিউব ব্যবহার করা যাবে না। টিউব গরম হলে সেটা দ্রুত পরিবর্তন করে ফেলতে হবে।
৮. সিলিন্ডারের আশপাশে কখনো মোবাইল ফোন, ক্যামেরা ও অন্যান্য ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার করবেন না।