বুধবার,২৬ Jul ২০১৭
হোম / স্বাস্থ্য-ফিটনেস / ঋতু পরিবর্তনেও সুস্থ থাকুন
০২/১৫/২০১৭

ঋতু পরিবর্তনেও সুস্থ থাকুন

-

শীতকে বিদায় জানিয়ে ধীরে ধীরে উষ্ণ হয়ে আসছে আবহাওয়া। ঋতু পরিবর্তনের এ সময়টাতে বাড়তে পারে জ্বর, সর্দি, কাশির মতো রোগের প্রকোপ। এই সময়ে শিশু ও বয়স্কদের পাশাপাশি যারা ঘরের বাইরে কাজ করেন, তাদের নানা সমস্যা হতে পারে। শীতের শেষ ও বসন্তের শুরুর এই সময়টায় তাই শরীরের প্রতি বাড়তি খেয়াল রাখা জরুরি।

- বসন্ত এলে অল্প কিছুদিন গরমভাব থাকলেই অনেকে শীতের পোশাক তুলে রাখেন। কিন্তু হুট করে আবার ঠান্ডা বেড়ে যেতে পারে। এ সময় বিকেলের পর থেকেই শরীর ভালোভাবে ঢেকে রাখুন।

- বসন্তে নানা বর্ণ ও গন্ধের ফুল ফোটে। এই ফুলগুলোর একটা বড় অংশের পরাগায়ন ঘটে বাতাসের মাধ্যমে। তাই বসন্তে পুষ্পরেণু অ্যালার্জি একটা সাধারণ ঘটনা। গাছ থেকে অনেক দূরে অবস্থান করলেও রোগীরা আক্রান্ত হতে পারেন। পুষ্পরেণু নাক ও শ্বাসযন্ত্রে ঢুকে চুলকানি, কাশি, হাঁচি, নাক দিয়ে পানিপড়া ইত্যাদি হতে পারে।

- এ সময় অ্যালার্জির কারণে হাঁপানিও বেড়ে যায় অনেকের। এই ঋতুতে ভাইরাস ধরনের অসুখ যেমন জলবসন্ত, ভাইরাস জ্বর হতেও দেখা যায়। জলবসন্ত খুব ছোঁয়াচে রোগ। রোগীর কাছ থেকে বাকিদের তাই সাবধানে রাখুন, বিশেষ করে যার কোনোদিন এ রোগ হয়নি।

- সংক্রমণ রুখতে সবচেয়ে ভালো উপায় হলো নিয়মিত হাত ধোয়া। বিশেষ করে বাজার, জিম বা যে-কোনো পাবলিক প্লেস, যেখানে অনেক লোকের সমাগম, সেসব জায়গা থেকে ঘুরে এসে অবশ্যই অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল সাবান বা হ্যান্ড ওয়াশ দিয়ে হাত ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।

- বারবার মুখে হাত না দেয়াই ভালো। অযথা চোখ কচলানো, নাকে হাত দেয়া থেকে ইনফেকশন ছড়ায়।

- বাড়িতে কেউ সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হলে ডিসপোজেবল জিনিসপত্র ব্যবহার করাই ভালো। কাপড়ের রুমাল ব্যবহার না করে টিস্যু ব্যবহার করুন। যিনি অসুস্থ তার কাপ, গ্লাস, প্লেট আলাদা রাখুন।

- দরজার হাতল, সুইচবোর্ড, কী-বোর্ড, টেলিফোন, রিমোট কন্ট্রোল ইত্যাদি হলো ইনফেকশন ছড়ানোর মাধ্যম। কারণ আক্রান্ত ব্যক্তি এসব জায়গায় হাত দিলে সেখানে ভাইরাস অনেকক্ষণ পর্যন্ত থাকে। তাই সাবানপানি বা ডিসইনফেকট্যান্ট সলিউশন দিয়ে দু’তিনবার পরিষ্কার করুন।

- বাথরুম এবং রান্নাঘরে কাপড়ের তোয়ালের পরিবর্তে পেপার টাওয়েল ব্যবহার করুন। কাপড়ে জীবাণু বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়।

- নির্দিষ্ট সময়ে খাওয়া, যথেষ্ট পরিমাণে ঘুম এবং নিয়মিত ব্যায়াম শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং সহজেই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া থেকে শরীরকে রক্ষা করে।

- যতটা পারেন বিশ্রাম নিন। প্রচুর পানি পান করুন। গরম পানি, হারবাল চা, চিকেন স্যুপ, টমেটো স্যুপ খেলে আরাম পাবেন। শরীর দ্রুত সেরে উঠবে ও শক্তি পাবেন।

- নাক বন্ধ এবং মাথা ভার কমাতে হালকা গরম পানিতে গোসল করুন। শোয়ার সময় নিঃশ্বাস নিতে অসুবিধা হলে দুটো বালিশ দিয়ে মাথা উঁচু করে শুতে পারেন।

- চিকিৎসকের পরামর্শ না নিয়ে কখনোই কোনো ওষুধ খাবেন না।

মনে রাখতে হবে, আপনার শরীরের সুস্থতা আপনার নিজের উপর নির্ভর করে। তাই নিয়মিত শরীরের যত্ন নিন, সুস্থ থাকুন।

- নেহেরিন