শনিবার,২৩ মার্চ ২০১৯
হোম / অন্দর-বাগান / বাগানে ল্যান্ডস্কেপিং করুন অরনামেন্টাল ঘাসে
০৩/০৭/২০১৯

বাগানে ল্যান্ডস্কেপিং করুন অরনামেন্টাল ঘাসে

-

‘‘বেডরুমের পাশে বাগান। ড্রয়িংরুমের সামনেও তাই। নানারকম শৌখিন গাছ লাগানো। ড্রয়িং রুমের লাগোয়া একটি বারান্দা। তার সামনে মস্ত একটি কাঠটগরের গাছ। পাতাবাহার, লালপাতিয়া, পেছনে করবীরবেড়া...’’ অন্দর ও বাগানের সৌন্দর্য এভাবেই ব্যাখ্যা করেছিলেন বুদ্ধদেব গুহ। শহুরে বাস্তবতায় নিজের বাসায় এমন প্রাকৃতিক সৌন্দর্য পাওয়া মুশকিল। কিন্তু তারপরও প্রাণ-প্রকৃতি-সবুজের প্রতি আমাদের নির্মোঘ আকর্ষণ এড়ানোও তো অনেক সময় অসম্ভব। এক্ষেত্রে বাড়ির উঠোন থেকে শুরু করে ব্যালকনি, ছাদ বা অন্দরসজ্জায় দেশি-বিদেশি হরেকরকমের গাছ-গাছড়ার কথা ভাবা যেতে পারে। এমন সৌন্দর্যবর্ধক একটি উপকরণ হলো অরনামেন্টাল গ্রাস।




অরনামেন্টাল গ্রাস কী?

ঘাস বলতে আমরা যে দূর্বাঘাস চিনি, ঠিক তা না, তবে এক ধরনের গুচ্ছ তৃণ, যা সাধারণ ঘাসের বৈশিষ্ট্য বহন করে। আমাদের পরিচিত কাশফুল অরনামেন্টাল গ্রাসের মধ্যে পড়ে। মূলত সৌন্দর্য বৃদ্ধিই এদের কাজ। সাধারণত সবুজ হলেও নানারঙের ও ভিন্ন প্রকারভেদের দেশি-বিদেশি অরনামেন্টাল গ্রাস পাওয়া যায়। এগুলো প্রায় সব ধরনের মাটিতে ও সব ঋতুতেই বেঁচে থাকে। খুব একটা যতেœর দরকার পড়ে না। তবে দীর্ঘদিন ধরে বাড়ির আঙিনায় সবুজ সৌন্দর্য দেয়। লনে বা শখের বাগানে অরনামেন্টাল গ্রাস প্রায়ই চোখে পড়ে।

ধরন-ধারণ

সব ধরনের অরনামেন্টাল গ্রাসই গুচ্ছ হয়ে বেড়ে ওঠে। এর মধ্যে ব্লু এভেনা অনেকটা ফুলের তোড়ার মতো ঝাড় হয়ে থাকে অন্যদিকে বাফেলো গ্রাস অনেকটা পরিচিত ঘাসের মতো সবুজ কার্পেটিংয়ের কাজ করে। আর মিসকান্থাস বা কাশফুল আকৃতিতে বেশ লম্বা হয় এবং দৃষ্টিনন্দন শুভ্র ফুল ফোটে। আর রয়েছে ফেদার রীড, ব্লু গ্রাস, ব্লুস্টেম ইত্যাদি। যার কিছু কিছু যেমন পার্পল ফাউন্টেইন গ্রাসও গোল্ডেন ব্যাম্বো টবেও লাগানো যায়।

পরিচর্যা

বাগান বা গাছ রাখার স্থানভেদে অরনামেন্টাল গ্রাস বাছাই করা উচিত। কতটা রোদ পড়ে ও মাটি কতটা উর্বর তার উপর গাছের বেড়ে ওঠা নির্ভর করে। লাগানোর প্রথম দিকে কিছুটা পরিচর্যার প্রয়োজন পড়ে, এরপর এরা এমনি বেড়ে ওঠে। মাটি শুকনো হলে কিছুটা কম্পোস্ট সার ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে স্যাঁতসেঁতে মাটিতে এরা ভালো জন্মায় না। বসন্তের আগ দিয়ে কিছুটা ছেঁটে দিলে ভালো ফুল আসতে পারে।

কেন লাগাবেন?

নার্সারির অনেক গাছই বাড়িতে এনে লাগানোর পর ঠিকমতো বেড়ে ওঠে না। আবার সঠিক পরিচর্যার অভাবে মারাও যায়। তবে অরনামেন্টাল গ্রাস এক্ষেত্রে অনন্য। প্রায় কোনো পরিচর্যা ছাড়াই এরা বেড়ে ওঠে। সহজেই পরিবেশের সাথে মানিয়ে যায় এবং ইচ্ছা অনুযায়ী আকৃতি দেওয়া যায়। অনেকগুলো বর্ষজীবী ও কিছু আছে দীর্ঘজীবী। মাত্র কয়েক সপ্তাহেই এরা পূর্ণ আকৃতি পেয়ে যায়। বসন্ত ও গ্রীষ্মে এগুলো ফুল সহকারে দারুণ সৌন্দর্য দেয়। সবুজ, নীল ও লাল রংভেদে এগুলো বাগানে কালার কনট্রাস্ট আনতে সাহায্য করে।
তাছাড়া বারান্দা বা বাগানে মিসকান্থাস ও ফেদার রীড অনেকটা বেড়ার কাজ করে। বাগানের কোনো একটা অংশ আলাদা করে বুঝাতে চাইলে অরনামেন্টাল গ্রাস লাগানো যেতে পারে।

কোথায় পাবেন?

ঢাকার আগারগাঁও, দোয়েল চত্বর, মোহাম্মদপুর ও আরও বেশ কিছু জায়গায় রয়েছে নার্সারি। খোঁজ নিতে পারেন ব্র্যাক নার্সারি বা ফার্মগেটের কৃষিবিদ উপকরণ নার্সারীতে। এ ছাড়া বন বিভাগ প্রতিবছর আয়োজন করছে বৃক্ষমেলার। সেখান থেকেও পাবেন নানাধরনের অরনামেন্টাল গ্রাস ও বীজ।

-রিয়াদুন্নবী শেখ