শনিবার,২৩ মার্চ ২০১৯
হোম / ফ্যাশন / শাড়িতে দেখাক স্লিম
০৩/০৫/২০১৯

শাড়িতে দেখাক স্লিম

-

বাঙালি নারীর চিরাচরিত বসন শাড়িই উপমহাদেশীয় পোশাকগুলোর মধ্যে সবচেয়ে আবেদনময়। আধুনিক সময়ের পোশাক হিসেবে গাউন বা পশ্চিমা পোশাককে আত্মীকরণ যতই করা হোক, ঐতিহ্যবাহী শাড়ির আবেদন সবসময়ই অমলিন। শাড়ি এমনই একটি পোশাক যা বাঙালি নারী তো বটেই, শ্বেতাঙ্গিনী থেকে কৃষ্ণাঙ্গিনী যে-কোনো নারীকেই এটি করে তোলে সৌন্দর্যের প্রতিমা।
তবে অন্য যে-কোনো পোশাকের মতোই শাড়ি পরিহিতার সৌন্দর্যও মূলত নির্ভর করে পোশাকটি পরিধানকারী কতটা সুন্দরভাবে সামলাচ্ছেন তার উপর। আর শরীরের ওজন ও আকার সঙ্গে মানানসই ডিজাইন ও পোশাকের সৌন্দর্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ শর্ত যা শাড়ির ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য।
আপনার শরীরের ওজন যদি বেশি হয় এবং অতিরিক্ত মেদ জমে থাকে শরীরের ভাঁজে, তবে শাড়ি দিয়ে সেই বাড়তি ওজন আর মেদ লুকিয়ে ফেলা সবচেয়ে সহজ হবে যদি আপনি কিছু সহজ কৌশল অবলম্বন করেন। তাছাড়া একই কৌশল অবলম্বনে আপনাকে হিলওয়ালা জুতো-স্যান্ডেল ছাড়াই লম্বাও দেখাবে বটে!





শাড়ি ও আঁচল গুছিয়ে নিন সঠিক উপায়ে

শাড়ির সৌন্দর্যের বেশির ভাগটাই ফুটে উঠে এর আঁচলে। তাই আপনি কীভাবে শাড়ি পরেছেন, আঁচল গুছিয়েছেন এবং সেটা কীভাবে সামলাচ্ছেন, তা খুবই জরুরি বিষয়। আপনার শাড়ি পরা আর আঁচলটি যদি অগোছালো থাকে তা আপনার পুরো সাজই মাটি করে দিবে!
শাড়ি পরার সময় যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখবেন সেগুলো হলো
শাড়ি এমনভাবে কোমড়ে গুঁজে নিন যেন তা অতিরিক্ত ফুলে না থাকে।
আঁচলে ভাঁজ দিন যতটুকু না দিলেই না ততটুকুই। বাড়তি মেদযুক্ত শরীরে আঁচলে বেশি ভাঁজ দিয়ে শাড়ি পরলে আরো মোটা দেখাবে।
যদি আঁচল ভাঁজ করা আপনার খুবই পছন্দের হয় তাহলে ভাঁজগুলো একটার উপর একটা একসঙ্গে না দিয়ে ছড়িয়ে দিন।
স্লিম দেখানোর জন্য শাড়ি ঢিলেঢালাভাবে না পেঁচিয়ে শরীরের সঙ্গে আটোসাঁটোভাবে জড়ান। কোনো অংশের শাড়ি যেন ঝুলে না থাকে।
সবচেয়ে ভালো হয় আঁচলের পুরোটা কাঁধের উপরে ভাঁজ না করে বাহুর উপর ছেড়ে দিলে। সহজে সামলানোর জন্য কব্জির কাছে আঁচলের নিচের অংশে কিছু ভাঁজ করে পিন-আপ করে নিতে পারেন।

হালকা ধরনের কাপড় নির্বাচন করুন

এমন কাপড় নির্বাচন করুন যা ফুলে না থেকে আপনার শরীরের সঙ্গে লেগে থাকবে। অরগ্যাঞ্জা, সাউথ কটন, সাউথ কাতান বা সাউথ সিল্ক এড়িয়ে চলাই ভালো। জর্জেট, সিল্ক, স্যাটিন, সিফন কাপড়ের শাড়ি পরুন। সবসময় সূতি শাড়ি পরলে হালকা ধরনের সূতি কাপড় নির্বাচন করুন।

গাঢ় রঙের শাড়ি নির্বাচন করুন

শরীরের আকার কেমন দেখাবে তার উপর রঙের প্রচ্ছন্ন প্রভাব রয়েছে। অতিরিক্ত মোটা বা অতিরিক্ত চিকন, দুই ধরনের শরীরেই গাঢ় রঙের শাড়িতে বাড়তি মেদ অথবা অতিরিক্ত শুকনো শরীরের চিহ্নগুলো ঢাকা পড়ে।

চিকন পাড় বা পাড়বিহীন শাড়ি নির্বাচন করুন

ভালো করে লক্ষ্য করলে দেখবেন, চওড়া পাড়ের শাড়ি পরলে মোটা বা চিকন যে কারোরই শরীরের বাঁকগুলো আরো স্পষ্ট হয়ে ফুটে ওঠে। তাই মোটা ও ভারি শরীরে চওড়া পাড়ের শাড়ি না পরাই ভালো। চিকন পাড়ের অথবা পাড়বিহীন শাড়ি পরলে মোটা শরীরকেও স্লিম দেখাবে।

ছোট নকশার প্রিন্ট নির্বাচন করুন

বড় বড় প্রিন্টের শাড়ি খালি চোখে দেখতে আসলে ভালোই লাগে। তবে অতিরিক্ত ওজন আর ভারি শরীরে বড় প্রিন্টের বা নকশার শাড়ি না পরাই ভালো। ছোট নকশার বা প্রিন্টের শাড়ি পরলে এমনিতেই স্লিম দেখাবে। এম্ব্রডায়েরি করা শাড়ি পরলে খেয়াল করবেন যেন নকশা খুব বেশি ছড়ানো না হয়।

ছোট হাতার ব্লাউজ এড়িয়ে চলুন

হাফ স্লিভ ও স্লিভলেস ব্লাউজ পরলে আপনার বাহুতে থাকা অতিরিক্ত মেদ সবার চোখে পড়বে। বেশি বড় গলার ব্লাউজ পরলেও শরীরের বাড়তি মেদ চোখে পড়বে। থ্রি কোয়ার্টার অথবা অন্তত কনুইয়ের উপর পর্যন্ত স্লিভ দেওয়া এবং হাইনেক বা ছোট গলার ব্লাউজ পরলে স্লিম দেখাবে।

পেটের অংশ ঢেকে রাখুন

কোমর অনাবৃত রেখে শাড়ি পরলে দেখতে ভালো লাগে যখন কোমর ও পেটের অংশ চমৎকারভাবে টোনড হয়। সঠিক শরীরচর্চা করে ভারি শরীরেও টোনড কোমর তৈরি করা সম্ভব। আপনার কোমর যদি ভালোভাবে টোনড না হয় তাহলে কোমর ঢেকে শাড়ি পরাই মঙ্গলজনক।

-কাজী শাহরিন হক