শনিবার,২৩ মার্চ ২০১৯
হোম / বিনোদন / না ফেরার দেশে পাড়ি জমালেন কণিকা মজুমদার
০২/২৬/২০১৯

না ফেরার দেশে পাড়ি জমালেন কণিকা মজুমদার

- অনন্যা ডেস্ক:

শুরু হয়েছিল ‘পুনশ্চ’ সিনেমায় অভিনয় দিয়ে। তারপর আর তাকে ফিরে তাকাতে হয়নি। নিজের অভিনয় গুণ দিয়ে জয় করে নিয়েছেন সকলের মন। তবে জীবনের শেষ সময়ে লোকচক্ষুর অন্তরালে চলে যান। বছর কয়েক যাবত ধরেই নিজের সিদ্ধান্তে থাকতে শুরু করেন এক বৃদ্ধাশ্রমে। গত ১৬ই ফেব্রুয়ারি বার্ধক্যজনিত অসুস্থতার কারণে না ফেরার দেশে চলে যান ৮৪ বছর বয়সী অভিনেত্রী কণিকা মজুমদার।

১৯৩৫ সালে ময়মনসিংহের এক ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্ম কণিকার। অভিজাত বংশের সাথে সাথে নিজেও শিক্ষিতা ছিলেন। জীবনের প্রথম অভিনয় করা সিনেমা মৃণাল সেনের ‘পুনশ্চ’ হলেও ‘তিন কন্যা’ আগে মুক্তি পাওয়ায় দর্শক তাকে সেখান থেকেই চেনা শুরু করে।
তবে তার সেরা কাজগুলোর একটি হচ্ছে, সত্যজিৎ রায়ের ‘মণিহারা’ সিনেমায় মণিমালিকার চরিত্রে অভিনয় করা। যা বাঙালি কখনোই ভুলবে না। এমনকি ভুলবেন না সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় নিজেও।
সৌমিত্রের ভাষ্যমতে, 'মানিকদার ‘মণিহারা’ সিনেমায় কণিকার কাজ ভুলবো না। সপ্রতিভ অভিনেত্রী। আর খুব ফোটোজেনিক ছিলেন।

অসিত সেনের ‘আগুন’ সিনেমায় সৌমিত্রের বিপরীতে এবং দীনেন গুপ্তের ‘বসন্ত বিলাপ’ সিনেমায় সৌমিত্রের বৌদির চরিত্রে অভিনয় করে দর্শকের মনে জায়গা করে নেন কণিকাদেবী।
অভিনেত্রী সন্ধ্যা রায়ের সঙ্গেও কাজ করেছিলেন তিনি।
কণিকাদেবীর মৃত্যুসংবাদ শুনে সন্ধ্যা রায় জানান, 'উনি স্কুলেও পড়িয়েছেন। ‘আগুন’ ছবিতে ওর সঙ্গে কাজ করেছি। মেকআপ নিয়ে বেশ খুঁতখুঁতে ছিলেন।'

উত্তমকুমারের প্রিয় অভিনেত্রী ছিলেন কণিকা। মহানায়কের সঙ্গে ‘সোনার খাঁচা’, ‘হার মানা হার’, ‘দুটি মন’, ‘চাঁদের কাছাকাছি’ ছবিতে তাকে দেখা যায়। ‘নবরাগ’ সিনেমায় তার লিপে সুমিত্রা সেনের রবীন্দ্রসঙ্গীতও আঁচড় কেটেছিল সবার মনে।
তাছাড়া মঞ্চে ‘কড়ি দিয়ে কিনলাম’, ‘বেগম মেরি বিশ্বাস’-এ অভিনয় করেছেন। শম্ভু মিত্রের সঙ্গে বেতারে ‘রক্তকরবী’ নাটকও করেছেন তিনি।
অভিনয়ের পাশাপাশি নৃত্য, সঙ্গীত, ছবি আঁকা- শিল্পের কব ক্ষেত্রেই প্রতিভার স্বাক্ষর রেখে গিয়েছেন কণিকাদেবী। তবে জীবনের শেষদিকে সেলুলয়েডের সঙ্গে দূরত্ব এমনটাই বেড়ে গিয়েছিল যে তার মৃত্যুও সবার অন্তরালেই রয়ে গেলো।