সোমবার,২২ Jul ২০১৯
হোম / বিনোদন / ২০১৮-র রূপালি পর্দা কথন
০১/১৫/২০১৯

২০১৮-র রূপালি পর্দা কথন

-

২০১৮ সাল বাংলাদেশি সিনেমার জন্যে কেমন ছিল তা জানার জন্যে নিশ্চয় সিনেমাপ্রেমীসহ সংশ্লিষ্ট সবাই কমবেশি আগ্রহী। ২০১৭-তে যেমন ‘ঢাকা অ্যাটাক’, ‘ডুব’, ‘হালদা’ ইত্যাদি সিনেমা নিয়ে মেতে ছিলেন সিনেমাপ্রেমিরা, তেমনি ২০১৮-তেও বেশকিছু ছবি নিয়ে আশায় বুক বেঁধেছিলেন তারা।
নতুন পরিচালকেরা মৌলিক গল্প ও মানসম্মত নির্মাণের মাধ্যমে দর্শকদের সিনেমা হলমুখী করার যে প্রচেষ্টা গত কয়েক বছর ধরে করছিলেন, ২০১৮-তেও সেটি অব্যাহত ছিল। রায়হান রাফি, অনম বিশ্বাস এবং বিজন ইমতিয়াজের মতো নির্মাতারা সাধ্যের সবটুকু দিয়ে রূুপালি পর্দায় স্বপ্ন বোনার কাজে বেশ সফলতার সাথেই আত্মনিয়োগ করেছিলেন। চলুন, তবে জানা যাক, সিনেমা হলে দর্শক টানা কিংবা সমালোচকদের মন জয় করার ক্ষেত্রে কোন ছবিগুলো এগিয়ে ছিল গত বছরে।

স্বপ্নজাল

দীর্ঘ ৯ বছর পর নিজের দ্বিতীয় সিনেমা নিয়ে দর্শকদের মাঝে উপস্থিত হয়েছিলেন নন্দিত নির্মাতা মনপুরা-খ্যাত গিয়াসউদ্দিন সেলিম। চিত্রনায়িকা পরীমনি এবং নবাগত ইয়াশ রোহানকে নিয়ে নির্মাণ করেন স্বপ্নজাল। চাঁদপুরের দুটি পরিবারকে কেন্দ্র করে আবর্তিত হয় ছবির গল্প। মনপুরার পর আবারও বাঁধনহারা প্রেমের গল্পে বোনেন স্বপ্নজাল। রোমান্টিক থ্রিলার ঘরানার সিনেমাটির ব্যাপ্তি ছিল ২ ঘণ্টা ২৭ মিনিট। বেঙ্গল ক্রিয়েশন্স প্রযোজিত স্বপ্নজাল মুক্তি পায় ৬ এপ্রিল। দীর্ঘ প্রতীক্ষায় থাকা ভক্তকুলের মুখে কতটা হাসি ফোটাতে পেরেছেন বা কতটা আবেগে ভাসাতে পেরেছেন নির্মাতা সেলিম, সেই বিষয়টি সিনেমাপ্রেমীদের উপরই ছেড়ে দেয়া যাক। তবে মনপুরার মতো সাফল্য যে স্বপ্নজাল পায়নি তা খুব একটা

গবেষণা না করেও বলা যায়। তবুও বছরের অন্যতম সুনির্মিত এবং উপভোগ্য সিনেমা হিসেবে গণ্য হবে স্বপ্নজাল।

পোড়ামন-২
ঈদুল ফিতর উপলক্ষে মুক্তি পায় ২০১৩ সালে মুক্তি পাওয়া জাকির হোসেন রাজু পরিচালিত ‘পোড়ামন’ সিনেমার দ্বিতীয় কিস্তি পোড়ামন-২। নবাগত পরিচালক রায়হান রাফি’র পরিচালনায় প্রথমবারের মতো বড় পর্দায় উপস্থিত হন ছোটপর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা সিয়াম আহমেদ। এছাড়াও পূজা চেরি, বাপ্পারাজ, ফজলুর রহমান বাবু, নাদের খান, সাইদ বাবুসহ আরও অনেকেই অভিনয় করেছেন। প্রথম পোড়ামনের মতো দ্বিতীয় কিস্তিতেও হৃদয়ভাঙা প্রেমের গল্পে দর্শকদের ভালোবাসা কুড়িয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। ব্যবসায়িকভাবে বছরের অন্যতম সফল সিনেমা পোড়ামন-২’র গানগুলো দর্শক-শ্রোতাদের মাঝে বেশ প্রশংসিত হয়েছিল। দেশের অন্যতম শীর্ষ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়ার সফলতম প্রজেক্টগুলোর একটি হিসেবে পোড়ামন-২ বাংলা সিনেমা জগৎকে উপহার দিয়েছে রায়হান রাফির মতো উদীয়মান নির্মাতা এবং সিয়াম আহমেদের মতো সম্ভাবনাময় অভিনেতা।

সুপার হিরো
আশিকুর রহমান পরিচালিত ও ঢালিউড হার্টথ্রব শাকিব খান অভিনীত সুপারহিরো বছরের অন্যতম আলোচিত ও ব্যবসাসফল সিনেমা। এসপিওনাজ-অ্যাকশন থ্রিলার ঘরানার সিনেমাটি ঈদ উপলক্ষে সারাদেশের সিনেমা হলগুলোতে মুক্তি পায়। ওপার বাংলার সিনেমায় বেশি কাজ করায় অন্যান্য বছরের মতো এ বছর শাকিব খানের সিনেমা মুক্তির আধিক্য ছিল না। ভারতে চালবাজ এবং ভাইজান এলো রে’র মতো সিনেমা

দিয়ে দর্শকদের মাতালেও দেশের বাজারে সুপার হিরোর সফলতাকে টপকাতে পারেনি কোনোটিই। পরিচালক আশিকুর রহমান এর আগে কিস্তিমাত এবং মুসাফিরের মতো ব্যবসাসফল সিনেমা নির্মাণ করেছেন, তারই ধারাবাহিকতায় সুপার হিরোর মাধ্যমে বাণিজ্যিক সিনেমা নির্মাণে আবারও নিজের পারদর্শিতার পরিচয় দিয়ে রাখলেন।


দেবী
এ-বছরই প্রথমবারের মতো নিজের প্রযোজনা সংস্থা ‘সি-তে সিনেমা’র মাধ্যমে চলচ্চিত্র প্রযোজনায় নাম লেখালেন সময়ের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান। হুমায়ূন আহমেদের বহুল পঠিত মিসির আলি সিরিজের দেবী উপন্যাসটিকে বড় পর্দায় তুলে এনেছেন তিনি। নবাগত পরিচালক অনম বিশ্বাস তার সাধ্যের সবটুকু ঢেলে দিয়ে রূপালি পর্দায় নিয়ে এসেছেন হুমায়ূন আহমেদের জনপ্রিয় চরিত্র মিসির আলিকে। মিসির আলি চরিত্রে অভিনয় করেছেন মনপুরা ও আয়নাবাজি-খ্যাত অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী। অন্যদিকে রানু চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে নিজের অভিনয় দক্ষতার জানান দিয়েছেন জয়া আহসান। এছাড়াও শবনম ফারিয়া, ইরেশ যাকের, অনিমেষ আইচসহ অন্যরা নিজেদের অভিনয় দিয়ে সিনেমাটিকে সমৃদ্ধ করেছেন। আধিভৌতিক উপাদান সমৃদ্ধ দেবী সিনেমাটি দর্শকপ্রিয়তায় বছরের অন্যতম আলোচিত সিনেমা। সমালোচকদের মুগ্ধ করার পাশাপাশি বাণিজ্যিক দিক দিয়েও সমানভাবে সফল ছিল সিনেমাটি।

দহন
বছরের শেষদিকটায় রায়হান রাফি-সিয়াম-পূজা ত্রয়ী আবারও ফিরে এসেছিলেন বড় পর্দায় নিজদের দ্বিতীয় নিবেদন দহন নিয়ে। কয়েক বছর আগে দেশজুড়ে ঘটে যাওয়া আগুন সন্ত্রাসের প্রেক্ষাপটকে পুঁজি করে সাহসী ও সময়োপযোগী নির্মাণ হিসেবে সব মহলে সমাদৃত হয়েছে সিনেমাটি। হৃদয়কে নাড়া দেয়া আবেগের সমাবেশ ঘটানো দহন সময়ের সঙ্কটগুলোকে যেন চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয়। দর্শক-সমালোচকদের মন জয় করে নেওয়ার সাথে সাথে ব্যবসায়িকভাবেও সাফল্য পায় দহন।

এছাড়াও ইফতেখার চৌধুরীর বিজলী, বিজন ইমতিয়াজের মাটির প্রজার দেশে, রাহসান ইসলামের বেঙ্গলি বিউটিসহ বেশ কিছু সিনেমা বছরজুড়েই ছিল আলোচনার কেন্দ্রে।

- হোসাইন মাহমুদ আব্দুল্লাহ