শনিবার,১৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৯
হোম / ভ্রমণ / মালদ্বীপে স্বপ্নের হলিডে
০১/১৩/২০১৯

মালদ্বীপে স্বপ্নের হলিডে

-

মালদ্বীপের কথা শুনলেই মাথায় স্বচ্ছ সাদা বালি এবং দিগন্তহীন নীল সমুদ্রের ছবি এসে পড়ে। ভ্যাকেশান ডেস্টিনেশান হিসেবে মালদ্বীপের বিকল্প কিংবা প্রতিদ্বন্দ্বী কোনোটাই নেই। নভেম্বর থেকে এপ্রিলের মধ্যে আপনি ভারতীয় মহাসাগরের মাঝে অবস্থিত মালদ্বীপে পাড়ি জমালে দেখতে পাবেন সূর্য এবং সাগরের এক অদ্ভুত মিলন। সানস্ক্রিন মেখে নানারকম ফলের জুস খেতে খেতে কয়েকদিন নিশ্চিন্ত হয়ে কাটিয়ে দিতে আপনার যেতে হবে মালদ্বীপে। তার চেয়েও বড় কথা, বাংলাদেশিদের জন্য এই দ্বীপ রাষ্ট্রে যেতে ভিসা নিয়ে কোনো ঝামেলাই করতে হয় না। পাসপোর্টের সাথে খরচের জন্য অর্থ ডলারে কনভার্ট করে কিংবা আন্তর্জাতিক ক্রেডিট কার্ড নিলেই আপনি অনায়েসে প্রবেশ করতে পারবেন সেখানে। আপনাদের সুবিধার্থে মালদ্বীপের সেরা গন্তব্য, হোটেল এবং রিসোর্টের কথা বলে দেই।

ফুলহাদহু আইল্যান্ড
ফুলহাদহু আইল্যান্ড বাকি সব দ্বীপ থেকে বেশি লাক্সারিয়াস। দ্বীপের একপাশে সবুজের ছড়াছড়ি, আর আরেক পাশে খাওয়াদাওয়া এবং কেনাকাটার জন্য আছে শপিং নেস্ট নামের বিশাল কমপ্লেক্স। অন্যদিকে সৈকতে কোনো রকম বাঁধা নেই বলে সূর্যোদয় এবং সূর্যাস্ত দেখা যায় আপনমনে।

ধিগুরাহদ্বীপ
মালদ্বীপের দক্ষিণে কয়েকটি দ্বীপ একসাথে মিলে হয়েছে ধিগুরাহ অঞ্চল। সেখানের সমুদ্র কিছুটা গভীর এবং এর ফলে ডাইভ করে দেখতে পাবেন রোমাঞ্চকর হোয়েল শার্ক। হাঙরের নাম শুনে ভয় পাবেন না, হোয়েল শার্কের মানুষের মাংসের প্রতি কোনো আকর্ষণ নেই। বরং বিশ্বের

সর্ববৃহৎ মাছের প্রজাতি ছোট চিংড়ি কিংবা ক্রিল মাছ খায়। দ্বীপের নামিদামি ডাইভ শপ থেকে অক্সিজেন এবং স্নর্কেল ইকুইপমেন্টস ভাড়া করে কোরাল রিফেও ঘুরে আসতে পারবেন।

মাফুশি আইল্যান্ড
মালদ্বীপের ভাষায় মাফুশি মানে হচ্ছে বড়। এই বড় দ্বীপ মালদ্বীপের সর্ববৃহৎ এবং অন্যতম টুরিস্ট ডেস্টিনেশান। যে-কোনো কেনাকাটা সেরে নিতে পারবেন এখান থেকে। চারটি বিচ আছে দ্বীপের চারিদিকে পাবলিক বিচ, বিকিনি বিচ, ওয়াটার স্পোর্ট বিচ এবং কোরাল বিচ। অফুরন্ত সৈকতে আপন মনে দিন কাটিয়ে দিতে পারবেন এই বিচে। নানারকম হোটেল, মোটেল এবং রেস্তরাঁর জন্যও এই আইল্যান্ড বেশ জনপ্রিয়।

কোথায় থাকবেন?
হাইডওয়ে বিচ রিসোর্ট ও স্পা
মালদ্বীপের অন্যতম সেরা রিসোর্টের মধ্যে একটি হাইডওয়ে। ধোনাকুলহি আইল্যান্ড এর পাশের সৈকতে অবস্থিত এই রিসোর্ট আপনাকে সমুদ্রের মাঝখানে থাকার অভিজ্ঞতা দেবে। সম্পূর্ণ প্রাইভেট ভিলাতে আপনি হারিয়ে যাবেন সমুদ্রের নীলকান্তমণিস্বরূপ পানিতে।

রিথি বিচ রিসোর্ট
এই রিসোর্ট তাদের ইকো-ফ্রেন্ডলি পরিবেশের জন্য জনপ্রিয়। পাম গাছ এবং দ্বীপের সবুজের মাঝে অবস্থিত এই রিসোর্টে আপনি গাছের ছায়ায়

বসে শান্তিতে থাকতে পারবেন গরম কালেও। আইল্যান্ডের এই রিসোর্টের আশেপাশে খাওয়ারও সুব্যবস্থা আছে।

কান্দালাহু রিসোর্ট
অন্যরকম অভিজ্ঞতা নিতে হলে আপনি কান্দালাহ রিসোর্ট বেঁছে নিতে পারেন। সমুদ্রের উপর তাদের আছে ইয়োগা এবং স্পা-এর ব্যবস্থা। শান্ত নীরব সাগরের সুরের সাথে তাল মিলিয়ে তাছাড়া, স্বচ্ছসুন্দর বালির সৈকত আর নীল সমুদ্রতো আছেই। হিমান্ধু আইল্যান্ডের অরকিড মাগু অঞ্চলে খুঁজে পাবেন এই মনোরম রিসোর্ট।

মাফুশি রিসোর্ট
মালদ্বীপের শ্রেষ্ঠ ডাইভিং ডেস্টিনেশান মাফুশি আইল্যান্ড। কোরাল রিফ এবং সমুদ্রতলের রঙিন জীবন দেখতে চাইলে আপনি মুফসি রিসোর্ট বেঁছে নিতে পারেন। রিসোর্ট থেকেই সি ডাইভিং-এর ব্যবস্থা করতে পারবেন এবং সারাদিন ঘুরে এসে নিতে পারেন স্পা ট্রিটমেন্ট।

নিকা আইল্যান্ড
নিকা আইল্যান্ড হানিমুনের জন্য অত্যন্ত জনপ্রিয়। এখানে প্রত্যেকটি ক্ষুদ্রদ্বীপে আছে একটি করে পার্সোনাল আইল্যান্ড এবং বাংলো। নৌকায় করে মাঝি আপনাকে নিয়ে যাবে ঘুরতে, তবে বাকি সময় আপনি আপন জনের সাথে থাকতে পারবেন সম্পূর্ণ আপনমনে, তাও মহাসাগরের মাঝে। নিকা আইল্যান্ডও মালদ্বীপের দক্ষিণে অবস্থিত।

মালদ্বীপে ট্রাভেল করার খরচ কম নয়। তবে অফ সিজনে হোটেল বুকিং এবং ট্রাভেল প্ল্যান করতে পারলে জনপ্রতি ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকার মধ্যে ঘুরে আসতে পারবেন অপরূপ সুন্দর মালদ্বীপ।

-কাজী মাহদী আমিন