সোমবার,১৯ নভেম্বর ২০১৮
হোম / জীবনযাপন / আপনার সময় নষ্ট করে যে যেসব সহকর্মী
১১/০৫/২০১৮

আপনার সময় নষ্ট করে যে যেসব সহকর্মী

-

জীবনের বিভিন্ন পর্যায়ে আপনার বন্ধু কে হবেন, সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সুযোগ আপনার থাকলেও কর্মক্ষেত্রে আপনার সহকর্মী কে হবেন, এ-ব্যাপারটা পুরোপুরি ভাগ্যের উপরেই ছেড়ে দিতে হয় সাধারণত। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় কাজের খাতিরে এই সহকর্মীদের সঙ্গেই সিংহভাগ সময় কাটাতে হয়। ভাগ্য বেশি ‘ভালো’ থাকলে কোনো কোনো সময় হয়তো সপ্তাহের ছুটির দিনেও সহকর্মীদের সঙ্গেই সময় কাটাতে হয় আপনাকে। ঘটনা যেমনই হোক, সহকর্মীদের এড়িয়ে জীবনযাপন করাটা বেশ কঠিনই।

তবে কর্মক্ষেত্রে কোন সহকর্মীর স্বভাব কেমন হবে, সহকর্মীদের প্রতি কার আচরণ কেমন হবে, কাজের প্রতি তাদের মনোযোগ ও একাগ্রতা কেমন থাকবে, এসব বিষয়ে কাজ শুরু করার আগে থেকে ধারণা করে নেওয়ার মতো কোনো সহজ উপায় সাধারণত থাকে না। তবে সহকর্মীদের মধ্যে কাকে পাত্তা দেবেন আর নিজের ভালোর জন্যই কোন কোন সহকর্মীকে যতটা সম্ভব দূরে রাখবেন, তার নিয়ন্ত্রণ কিন্তু আপনার হাতেই রয়েছে!

যেসব সহকর্মীকে দূরে রাখাই আপনার জন্য ভালো তারা হলেনঃ

বাচাল
বাচাল বা বেশি কথা বলা ব্যক্তিদের খুব সহজেই চিহ্নিত করতে পারবেন আপনি। তারা কোনো কারণ ছাড়াই কথা বলবে, এবং বলেই যাবে, সেটা কোনো অবসর সময়ের আলাপেই হোক, অথবা জরুরি বোর্ড মিটিংয়েই হোক, অথবা অন্যান্য দৈনন্দিন কাজের সময়ই হোক। এমন ব্যক্তিরা কথার প্যাঁচে হারিয়ে দিতে পারে যে কাউকেই। তবে দিনশেষে আপনি আবিষ্কার করবেন যে, তাদের কথার ফোয়ারার তোড়ে নিজের ভাগের কাজ সিকি অংশও শেষ করতে পারেননি আপনি।

নৈরাশ্যবাদী
জীবনে কিছু মানুষকে আপনি পাবেন, যারা কোনো কিছুতেই ভালো কিছু খুঁজে পান না, কোনো আশা দেখতে পান না। এমনকি সব কিছু চমৎকার ছন্দে গড়িয়ে গেলেও এই ধরনের ব্যক্তিরা তার মাঝে কোনো না কোনো নেতিবাচক কিছু খুঁজে বের করবেই, এবং আশপাশের সবাইকে দুশ্চিন্তায় রাখবে! আপনি যখনই এদের দেখা পাবেন তখনই দেখবেন এরা কোনো না কোনো আসন্ন বিপর্য় নিয়ে অফুরন্ত আলোচনা করছেনই! বিরক্তিকর বিষয় হলো যে, এই ধরনের লোকজন আপনার প্রতিটি সাফল্যের পিছনে কোনো না কোনো নেতিবাচক দিক খুঁজে বের করবেন। এবং তারে চেয়েও ভয়ঙ্কর হলো যে, এরা আপনাকে বিশ্বাস করিয়েই ছাড়বেন যে, কর্মক্ষেত্রে আপনার যা কিছু অর্জন, তা যে-কোনো সময় একবারে নষ্ট যেতে পারে। একজন সহকর্মীই আপনাকে বিষণ্ণতায় ডুবিয়ে দেবার জন্য যথেষ্ট।

পারিবারিক সমস্যায় জর্জরিত
আপনার কিছু সহকর্মী থাকবেন যারা সবসময়ই নিয়মিতভাবে কোনো না কোনো পারিবারিক সমস্যায় পিষ্ট হতে থাকবেন, এবং অফিসে এসে তার পারিবারিক সমস্যা নিয়ে ক্রমাগত বলতেই থাকবেন। এবং আপনি যদি অন্যের মনোকষ্টের সময় সহানুভূতিশীল হয়ে তার কথা শুনতে অভ্যস্ত হয়ে থাকেন, তবে আপনি বিপদে পড়বেন। কারণ এই সহকর্মীদের পারিবারিক সমস্যার কখনওই শেষ থাকে না, একটার পর একটা তৈরি হতেই থাকে। আর সেসব সমস্যার কাহিনি শুনতে গেলে আপনার ক্ষেত্রে যা ঘটবে তা হলো আপনার নিজের দরকারি কাজগুলো আপনি কখনওই সময়মতো শেষ করতে পারবেন না!

অতিকর্মঠ
কিছু মানুষ আছেন যারা কর্মঠ, আবার কিছু সহকর্মী পাবেন যারা অতিকর্মঠ। কর্মঠ সহকর্মী পাওয়া ভালো, কারণ তারা আপনার কাজে ঝামেলা না পাকিয়ে নিজের কাজ নিয়েই ব্যস্ত থাকবেন। তবে অতিকর্মঠদের থেকে সাবধানে থাকবেন। এরা শুধু নিজেদের কাজের গতি নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে পারেন না, বরং আপনাকেও সবসময় আপনার কাজের গতি বাড়ানোর জন্য তাগিদ ও পরামর্শ দিতে থাকেন। তাদের মাথায় সবসময়ই চমৎকার সব পরিকল্পনা ঘুরপাক খেতে থাকে যেগুলোর বাস্তবায়নে অংশ নিতে গেলে আপনার শুধু সময় নষ্ট হওয়া ছাড়া আর কোনো উপকার হবে না। এসব সহকর্মীদের থেকে অবশ্যই দূরে থাকুন।

পরচর্চায় পারদর্শী
কর্মক্ষেত্র ছাড়াও সব জায়গাতেই পরচর্চায় পারদর্শীদের দেখা আপনি পাবেনই। অফিসের দারোয়ান, ড্রাইভার থেকে শুরু করে নিজের সমর্পায়ের সহকর্মী বা বস- কেউই এদের পরচর্চার আওতার বাইরে যান না! আর তার চেয়েও ভয়ংকর ব্যাপার হলো যে, এ ধরনের সহকর্মীদের দূরে সরিয়েও রাখা যায় না, ঘুরেফিরে এসে পরচর্চা করে আপনার সময় এরা নষ্ট করবেনই।

- কাজী শাহরিন হক
ছবিঃ শাহরিয়ার শিতাব
মডেলঃ ইশানা আখি, মোহাইমিনুল ইসলাম রাব্বি, সানি