সোমবার,১৯ নভেম্বর ২০১৮
হোম / ফ্যাশন / শাড়িতে পূজার সাজ
১০/১৫/২০১৮

শাড়িতে পূজার সাজ

-

সনাতন ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় উ্ৎসব দুর্গাপূজার ঢাক ওই বাজলো বলে। পূজার আগমনীতে শরতের বাতাসে ভিন্ন এক আমেজ থাকে। সেই আমেজেই ইতোমধ্যে পূজার প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেছে। টানা পাঁচ দিনের প্রস্তুতি বলে কথা।

পূজার সাজের কথা মাথায় এলেই লাল পেড়ে সাদা শাড়ি আর কপালে টিপ পরা নারীর ছবিই ভেসে আসে। তবে প্রতিদিন তো আর এক ধরনের শাড়ি মানায় না। তাই চারদিনের ভিন্ন উপলক্ষের জন্য বেছে নিতে হবে মানানসই শাড়ি আর সাজ।

ষষ্ঠী
ষষ্ঠীতে দেবীর বোধনে পূজা শুরু হয়। ষষ্ঠীর দিন অনেক কাজের ভেতর থেকে পূজা-অর্চনা করাই রীতি। তবে সকাল থেকেই এদিন মণ্ডপে মণ্ডপে ঘোরাটাও বেশ জোরেশোরে শুরু হয়। তাই সকালে বা দুপুরের দিকে যারা বের হবেন তারা তাঁত, কটন, জামদানি কিংবা মানানসই শাড়ি পছন্দ করতে পারেন।

সপ্তমী
সপ্তমীতে একটু হালকা সাজ মানানসই। দিনের বেলার সাজে যতটা সম্ভব হালকা হওয়া জরুরি। দিনে মন্দিরে যাওয়া বা পূজার অঞ্জলি দেওয়ার সময় প্রকৃতির সজীব ভাবটা সাজে থাকা চাই। তাই সকালে বেছে নিতে পারেন হালকা তাঁত বা সুতির শাড়ি। শরতের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে হালকা নীল, সবুজ, ফিরোজা ইত্যাদি রংগুলো বেছে নিতে পারেন। হালফ্যাশনের সঙ্গে মানিয়ে একরঙা বা চেক অথবা ব্লকের শাড়িও বেছে নেওয়া যেতে পারে। দিনের সাজও হতে হবে ন্যাচেরাল। অতিরিক্ত সাজ দিনের ঘোরাঘুরির জন্য বেমানান।

সন্ধ্যায় বের হওয়ার জন্য বেছে নিতে পারেন সিল্ক বা হালকা কাতান শাড়ি। গাঢ় বা উজ্জ্বল যেকোনো রংই মানানসই, তবে বেশি ভারি শাড়ি এড়িয়ে চলাই ভালো। সাজেও খানিকটা উদার হতে পারেন তবে তা যেন মানানসই হয় সেদিকে খেয়াল রাখুন।

অষ্টমী
এই দিনটি দুর্গাপূজার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দিন। দিনে সাজ হালকা হলেও তার মধ্যে আভিজাত্য ফুটিয়ে তুলতে হবে। এদিন লাল বা মেরুন রং প্রাধান্য দেওয়া যেতে পারে। সাদা শাড়ি লাল পাড় অষ্টমীর জন্য আদর্শ। চাইলে এক প্যাঁচে শাড়ি পরতে পারেন এদিন সকালে। সকালে পূষ্পাঞ্জলি দেওয়ার সময় লাল পেড়ে সাদা শাড়িপরা যেতে পারে। চাইলে সাধারন তাঁতের শাড়ি বা জামদানি বেছে নিন এই দিনে। মাথায় গুঁজতে পারেন যেকোনো পছন্দমতো ফুল।

রাতের শাড়ির ক্ষেত্রে বেছে নিতে পারেন গরদ, তসর, সিল্ক, কাতান বা ভারি জামদানি শাড়ি। সাজটাও হতে পারে কিছুটা জমকালো। টানা কাজল, উজ্জ্বল লিপস্টিকে বেশ গর্জিয়াস লাগবে।

নবমী
ধারা অনুযায়ী নবমীর সকালে হালকা শাড়ি বেছে নিন। এবার চাইলে হালকা সিল্ক, মসলিন, জর্জেট শাড়িও পরা যেতে পারে। লিনেন শাড়িও হাল ফ্যাশনে বেশ জনপ্রিয়। মনিপুরী তাঁত শাড়িগুলোও হতে পারে এদিনের জন্য আদর্শ।

রাতের শাড়ি হতে পারে জমকালো। ভারি কাজ করা জর্জেট শাড়ি, হাতের কাজের সিল্ক শাড়ি, কাতান বা সিল্ক, যে-কোনোটি হতে পারে নবমীর সন্ধ্যার জন্য আদর্শ। সাজতে পারেন মন ভরে।

দশমী
দেবীকে বিদায় জানানোর দিন। দিনের বেলায় সিঁদুর খেলা আরও নানান আয়োজন থাকে। এই দিন লাল পেরে সাদা শাড়িই সবার পছন্দের তালিকায় থাকে। চাইলে পুরো সাদা বা লাল শাড়ি পরা যেতে পারে। সেই সঙ্গে কনট্রাস্ট ব্লাউজ পরা যেতে পারে। এই দিন মাথায় গুঁজতে পারেন শুভ্র ফুল। দেখতে বেশ স্নিগ্ধ দেখাবে।

পরিনীতারা এদিনে কপালে বড় লাল টিপ আর সিঁথিতে মোটা করে সিঁদুর পরে নিন। হাতে পরুন শাঁখা পলা।

শাড়ি শুধু বেছে নিলেই চলবে না শাড়ি পরার ক্ষেত্রে কিছু বিষয় মাথায় রাখলে তা আপনাকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলবে।

> শাড়ি বাঙালি নারীদের জন্য একটি আদর্শ পোশাক, কিন্তু নিজেকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে সঠিক ধরনের শাড়ি বেছে নেওয়া জরুরি। যারা লম্বা তাদের জন্য এই বাছাইয়ের তালিকাটা বেশ বিস্তৃত। যে-কোনো শাড়িই মানিয়ে যাবে। তবে একটু খাটো হলে চওড়া পাড়ের শাড়ি এড়িয়ে চলাই ভালো।

> শাড়ি সুন্দর হলেই চলবে না, এর সঙ্গে মানানসই ব্লাউজ পরাও জরুরি। বেমানান ব্লাউজ পুরো লুক ভেস্তে দিতে পারে। এখন কনট্রাস্ট ব্লাউজের ট্রেন্ড চলছে, সেক্ষেত্রেও প্রিন্ট বা রং বাছতে হবে বুঝে শুনে।

> শাড়ির সঙ্গে স্যান্ডেল বাছাই করতে হয় বুঝে শুনে। পূজায় ঘুরাঘুরি বেশি হয়, তাই শাড়ির সঙ্গে মানানোর পাশাপাশি তা যেন আরামদায়ক হয়, সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে।

> শাড়ির অন্যতম বেইস হলো পেটিকোট। মানানসই পেটিকোট শাড়িকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করে। তেমনি, সঠিকভাবে পেটিকোট বাঁধা না হলে শাড়ি নিয়ে অস্বস্তিকর পরিস্থিতিতে পরতে হতে পারে।

> শাড়ির সঙ্গে গয়না একটি অবিচ্ছেদ্য অনুষঙ্গ। তাই গয়না বেছে নিতে হবে মানানসই ভাবে। শাড়ি যদি হালকা হয় তবে কানে বা গলায় যে- কোনো একটি ভারি গয়না পরতে পারেন। তবে অবশ্যই সামঞ্জস্যতা বজায় রাখতে হবে। তেমনি ভারি শাড়ির সঙ্গে হালকা গয়না বেছে নিন। নতুবা দেখতে জবরজং লাগতে পারে।

শাড়ি যে-কোনো অনুষ্ঠানেই সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে উপযোগী। তবে শাড়ি পরে তা সুন্দরভাবে ক্যারি করাও জরুরি। যে যেমন পোশাকই পরুন না কোনো, উ্ৎসব উপভোগ করাই বড় বিষয়।

- অদ্বিতী ইরা