বুধবার,২৫ এপ্রিল ২০১৮
হোম / রূপসৌন্দর্য / লিপস্টিক রাঙানো ঠোঁটঃ টিপস অ্যান্ড ট্রিকস
০৪/০৯/২০১৮

লিপস্টিক রাঙানো ঠোঁটঃ টিপস অ্যান্ড ট্রিকস

-

মেয়েদের হ্যান্ডব্যাগে সবচেয়ে প্রয়োজনীয় জিনিসটাই হলো লিপস্টিক। কিন্তু লিপস্টিক যেকোনোভাবে লাগালেই চলে না, এরজন্য মেনে চলতে হয় কিছু ছোটোখাটো নিয়ম বা হ্যাক। চলুন দেখে নিই ১১টি লিপস্টিক হ্যাক যা সাহায্য করবে আপনার পছন্দের লিপস্টিকের রঙ ফুটিয়ে তুলতে-

১। ঠোঁট এক্সফলিয়েট করুন
মৃত চামড়া সরাতে লিপস্টিক লাগানোর আগে হালকা করে ঠোঁট স্ক্রাব করে নিন। এতে ঠোঁটে লিপস্টিকের রঙ সুন্দরভাবে বসবে।

২। ময়েশ্চার
লিপস্টিক লাগানোর কিছুক্ষণ আগে থেকে ঠোঁটে কোনো লিপজেল লাগিয়ে রাখুন। এতে আপনার ঠোঁটের ত্বক মোলায়েম হবে ও লিপস্টিকটি ভালোভাবে লাগানো যাবে। লিপস্টিক লাগানোর ১০ মিনিট আগে লিপবাম লাগালেই হবে। এছাড়া প্রতিরাতে ঘুমানোর আগেও লাগিয়ে নিতে পারেন ঠোঁটের ত্বক নরম রাখার জন্য। তবে লিপস্টিক দেয়ার পূর্বে অবশ্যই অতিরিক্ত লিপজেলটুকু সরিয়ে ফেলুন, নাহলে লিপস্টিক সহজে মুছে যাবে বা ঠোঁটে চিটচিটে দেখাবে। ময়েশ্চারাইজারের বদলে ভিটামিন-ই ক্যাপসুলও লাগাতে পারেন।

৩। ব্যবহার করুন প্রাইমার
আমাদের অনেকেরই ত্বকই পিগমেন্টেড অর্থাৎ সবটুকুর রঙ বা টেক্সচার একরকম হয় না। সেক্ষেত্রে লিপস্টিকের রঙ হালকা হলে একেক জায়গায় একেক রকম দেখাবে ও আসল রঙটা বোঝা যাবে না। যাদের এই সমস্যাটি আছে তারা লিপস্টিক দেয়ার আগে প্রাইমার ব্যবহার করতে পারেন ত্বকের রঙের সামঞ্জস্যতা আনতে। তাছাড়া প্রাইমার লিপস্টিককে জায়গামতো রাখে ও দীর্ঘস্থায়ী করে।

৪। লিপলাইনার
আমরা জানি লিপলাইনারের কাজ হলো লিপস্টিককে ঠোঁটের সীমানার মাঝে রাখা। তাই লিপস্টিক দেয়ার আগে ঠোঁটের আউটলাইনটি লিপলাইনার দিয়ে এঁকে নেয়া ভালো। ঠোঁট নিখুঁতভাবে আঁকার জন্য লিপলাইনার সরু করে নিন। লিপলাইনারের রঙ লিপস্টিকের রঙ থেকে হালকা হবে। এছাড়া লিপলাইনার পুরো ঠোঁটে দিয়ে নিলে লিপস্টিকও খুব সুন্দর করে বসে। দীর্ঘসময় লিপস্টিক রাখার জন্য পুরো ঠোঁট লিপলাইনার দিয়ে ভরাট করুন।

৫। সেট করার জন্য পাউডার ব্যবহার করুন
আপনার লিপস্টিক যদি প্রায়ই ঠোঁটের আশপাশে ছড়িয়ে যায় তাহলে এই সমস্যার সবচেয়ে ভালো সমাধান হলো পাউডার দিয়ে সেট করে নেয়া। লিপস্টিক দেয়ার পরে ঠোঁটে আলতোভাবে ট্যালকম বা ট্রান্সলুসেন্ট পাউডার লাগিয়ে নিন। এর উপরে লিপস্টিকের আরেকটি লেয়ার লাগিয়ে নিলেই তা অনেক লম্বা সময়ের জন্য টিকে থাকবে। আবার ছোট্ট একটি ব্রাশ দিয়ে ঠোঁটের বাইরে চারপাশ দিয়ে কিছু পাউডার লাগিয়ে নিলে লিপস্টিকের রঙ বাইরে ছড়িয়ে পড়বে না।

৬। দাঁত থেকে লিপস্টিক সরান
দাঁতে লিপস্টিক না লাগতে দিতে চাইলে এই সহজ ট্রিকটি মেনে চলুন। লিপস্টিক লাগানোর পর পরিষ্কার একটি আঙুল গোল করে মুখে দিন এবং এর চারপাশে ঠোঁটের ভিতরের অংশটুকু মুছে নিন। অথবা একটি আঙুল ঠোঁটের ভেতর দিয়ে মুখটি ‘ঙ’ আকৃতি করুন। এভাবে ঠোঁটের ভিতরের দিকের অতিরিক্ত লিপস্টিকটুকু উঠে আসবে।

৭। ব্রাশ দিয়ে লিপস্টিক লাগান
সরাসরি টিউব থেকে লাগালে অনেক সময় ঠোঁটের কোণা ও ভাঁজে ঠিকভাবে লিপস্টিক পৌঁছায় না। এই সমস্যার জন্য ব্যবহার করতে পারেন চিকন কোনো মেকআপ ব্রাশ। লিপ ব্রাশের সাহায্যে খুব সূক্ষ্মভাবে লিপস্টিক লাগাতে পারবেন। পার্লারে বা মেকআপ টিউটোরিয়াল ভিডিওগুলোতেও ব্রাশ ব্যবহার করে লিপস্টিক লাগাতে দেখা যায়।

৮। কালার হালকা করুন
যদি কোনো ম্যাট লিপস্টিক দেয়ার পর মনে হয় রঙ কিছুটা কড়া হয়ে গেছে তাহলে হালকা রঙের গ্লস দিন এর উপরে। আবার একইভাবে বেশি গ্লসি হয়ে গেলে একটি টিস্যু দিয়ে মুছে অল্প একটু পাউডার লাগিয়ে নিন। এভাবে কয়েকটি রঙের লিপস্টিকই আপনি ভিন্নভাবে ব্যবহার করতে পারবেন।

৯। ভরা ঠোঁটের জন্য
ভরা ঠোঁটের লুক চাইলে, লিপ লাইনারটি ঠোঁটের কিছুটা বাইরে দিয়ে আঁকতে পারেন। অথবা নিচের ঠোঁটের মাঝখানে অল্প একটু হাইলাইটার দিয়ে মিলিয়ে নিন। হাইলাইটার ঠোঁটে অতিরিক্ত ভলিউম যোগ করে পূর্ণাঙ্গতা দেয়।

১০। লিপস্টিক ওঠানো
যদি আপনার লিপস্টিকের দাগ ঠোঁট থেকে ওঠাতে ঝামেলা হয়, তাহলে ব্যবহার করুন নারকেলের তেল। কেমিকাল মেকআপ রিমুভার এক্ষেত্রে ক্ষতিকর কারণ এটি মাঝে মাঝে ঠোঁটকে শুকিয়ে দেয়। নারকেলের তেল লিপস্টিকের দাগও দূর করবে, সাথে ঠোঁট ময়েশ্চারাইজডও করে তুলবে।

১১। দৈনন্দিন যত্ন
ঘুমানোর আগে বা অবসর সময়ে কাপে দুই চা-চামচ গোলাপজল, দুই চা-চামচ গ্লিসারিন, ও পাঁচ ছয় ফোঁটা অলিভ অয়েল নিয়ে আঙুল দিয়ে মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি ঠোঁটে মাখলে শুষ্ক ও রুক্ষভাব দূর হয়ে যায়।

- নুসরাত ইসলাম