শুক্রবার,২০ অক্টোবর ২০১৭
হোম / বিবিধ / পূজার টুকিটাকি কেনাকাটা
০৯/২৭/২০১৭

পূজার টুকিটাকি কেনাকাটা

-

উৎসব মানেই নানা আয়োজনে প্রিয়জনদের নিমন্ত্রণ আর খুশির উদযাপন। কিন্তু উদযাপন কি খালি হাতে হয়? লাগে নানা অনুষঙ্গ। আর উৎসবটা যখন পূজার তখন আয়োজনটাও হওয়া চাই আরো রঙ্গিন এবং জমকালো। সেই আবহমানকাল থেকেই নানা অনুষঙ্গে বঙ্গদেশে দুর্গাপূজা হয় বেশ আয়োজন করেই, আধুনিকতার সাথে সাথে এই আয়োজনে যোগ হয়েছে আরো ব্যতিক্রমী অনুষঙ্গ।

প্রতিমার পূজা করার জন্য আনুষঙ্গিক জিনিসপত্রেরও প্রয়োজন পড়ে। মায়ের পূজা বা অর্চনা করতে হলে ভক্তদের অন্তত একশ উপকরণের আয়োজন করতে হয়। এরমধ্যে রয়েছে শাঁখা, সিঁদুর, আলতা ইত্যাদি। এ ছাড়া রয়েছে সোনা, রূপা, সিঁদুর, সুগন্ধি তেল, সেন্ট, লাল সুতা, বড় ঘট, ছোট ঘট, স্নানের পাতিল, মুচি ঘট, ধারা ঘট, পঞ্চপ্রদীপ, চামর, কর্পূর, ছোট পাতিল, ধুপতি, প্রদীপগাছা, বিসর্জনের পাতিল, চাদর, শাড়ি, ধুতি কাপড়, দূর্বা, তুলসী, চন্দন, বেল পাতা, পদ্মফুল, ফুলের মালা, গামছা, সাদা কাপড়, নবঘটের পতাকার কালো কাপড়, বিচিত্র রঙের পুরোহিত বরণ ধুতি ইত্যাদি।

আর পূজায় আলোকসজ্জা না থাকলে কি চলে? মরিচবাতি তো থাকছেই, সঙ্গে মোমবাতির আকর্ষণও কিন্তু কম নয়। বসার ঘর, করিডর বা সিঁড়িঘরে ফুলের পাপড়ি ভর্তি মাটির পাত্রে ফ্লোটিং ক্যান্ডেল রাখতে পারেন। কিংবা ঘরের কোণায় বড় মোমবাতি স্ট্যান্ড বসিয়ে তাতে কয়েকটা রঙিন মোমবাতি বসিয়ে দেওয়া যেতে পারে। চোখের পলকে পাল্টে যাবে পুরো ঘরের চেহারা। ঘরে সুগন্ধি হিসেবে ধূপ জ্বালিয়ে রাখলে ভালো। এতে পূজার আমেজ পুরোপুরি ফুটে উঠবে।

উৎসব আয়োজনে আতশবাজির ব্যবহার প্রায় সব দেশেই। পাশের দেশ ভারতের পশ্চিমবঙ্গে পূজায় বহুলভাবে নানারকম আতশবাজির ব্যবহার দেখা যায়। আমাদের দেশেও আতশবাজির ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়। বিভিন্ন ধরনের ঝাড়বাতির আলোকচ্ছ্বটা উৎসবের আমেজ বাড়িয়ে তোলে। তাছড়াও নানা ধরনের আতশবাজি পাওয়া যায় বাজারে। অনেকগুলো আকাশে তৈরি করে বর্ণিল আলোকচ্ছটা, দেখা যায় বহু দূর থেকে। তবে আতশবাজি ব্যবহারে কিছুটা সতর্কতাও অবলম্বন করা উচিত। ছোটদের সব ধরনের আতশবাজি দেওয়া উচিত না, এতে দুর্ঘটনাও ঘটতে পারে।

পূজার রাতে উড়িয়ে দিতে পারেন ফানুস। ইদানিং নানা উৎসবে ফানুস ওড়াতে দেখা যায়। পূজাও এর ব্যতিক্রম নয়। এখন বাজারে পাওয়া যায় নানা রকমের ফানুস। ছোট থেকে বড় এবং বিভিন্ন রঙের ফানুস পাওয়া যায়। অনেক অনলাইন শপও ইদানিং ফানুস বিক্রি করে। শুধু অর্ডার করলেই দিয়ে যাবে বাড়িতে।

শুধু ঘরের সাজে কেন, খাবার টেবিলেও আনতে পারো পূজার ছোঁয়া। দুর্গাপূজার মূল আকর্ষণ নাড়ু, সন্দেশও প্রসাদ পরিবেশনের জন্য প্রয়োজনীয় বাটি, প্লেট, গামলা জোগাড় করে রাখো। প্রয়োজনে মাটির পাত্রও কিনে নেয়া যাবে তাহলেই পূর্ণ হবে পূজার ষোলো আনা আনন্দ।

কোথায় পাবেন?

পূজা উপলক্ষে দেশের ফ্যাশন হাউসগুলোতে প্রতিবছরই জামাকাপড়ের পাশাপাশি বিশেষ দেয়ালিকা, কার্পেট, ম্যাট, জানালার পর্দাসহ নানা অনুষঙ্গ পাওয়া যায়। সঙ্গে থাকে নানা রকম অফার। চাইলে সেখান থেকেও পূজার কিছু জিনিসপত্র সংগ্রহ করা যাবে। এ ছাড়া রাজধানীর নিউমার্কেট, গাউছিয়া, বসুন্ধরা সিটি ছাড়াও শাঁখারী বাজার, তাঁতী বাজার, নবাবপুর কিংবা চকবাজার এলাকায় ঢুঁ মেরে আসতে পারো। সেখানে পূজাসংক্রান্ত সবকিছুই পাওয়া যায়। দামের ক্ষেত্রে মার্কেটভেদে ভিন্নতা থাকলেও কোনো কিছুই নাগালের বাইরে নয়। শুধু দেখেশুনে দরদাম করে কিনতে পারলেই হলো। পূজা যত এগিয়ে আসবে, ভিড় বাড়বে সব মার্কেটেই। তাই আগে থেকে কেনাকাটা সেরে রাখাই ভাল।

- শারিদ