বৃহস্পতিবার,২৭ এপ্রিল ২০১৭
হোম / ফ্যাশন / নববর্ষে নজরাকাড়া সাজ
০৪/০৮/২০১৭

নববর্ষে নজরাকাড়া সাজ

-

পহেলা বৈশাখ, বাঙালির প্রাণের উৎসব। আর তাইতো এই দিনটিকে বরণ করার জন্য প্রস্তুতি শুরু হয় বেশ আগে ভাগেই। সাদা শাড়ি লাল পাড় আর খোঁপায় বেলিফুলের মালা, এসব নাহলে কি আর বর্ষবরণ হয়!

বেশ কয়েক বছর ধরেই দেশীয় ফ্যাশন হাউজগুলো বেশ জাঁকজমকের সঙ্গে বৈশাখি কালেকশন নিয়ে হাজির হয় মার্চের শেষেই। আর তাই ফ্যাশন হাউজগুলোর বদৌলতে বৈশাখি ফ্যাশনেও এসেছে বৈচির্ত্য।

সাদা শাড়ি লাল পাড়ের রীতি পাল্টে এখন বৈশাখ বরণে স্থান করে নিয়েছে অন্যান্য নানান রং। তবে বৈশাখের পোশাক তালিকায় হিসেবে নারীদের পছন্দের শীর্ষে শাড়ির অবস্থান রয়েছে সুদৃঢ় যদিও শাড়ির পাশাপাশি সালোয়ার-কামিজ, ফতুয়া, কুর্তাও অনেকে বেছে নেন নিজের স্বাচ্ছন্দ্যের ভিত্তিতে।

এ-কারণেই সবার চাহিদার কথা মাথায় রেখে দেশীয় ফ্যাশনঘরগুলো পোশাকের পসরা সাজায় তাদের বিক্রয়কেন্দ্রগুলোতে। শুধু নামিদামি ফ্যাশন হাউজগুলোই নয়, ছোটোখাটো দোকানগুলোও বৈশাখি আমেজে সাজায় তাদের সম্ভার।

বৈশাখের তীব্র রোদ আর গরমের বিষয়টি মাথায় রেখে পোশাক তৈরির ক্ষেত্রে সুতি কাপড়ই প্রাধান্য পায়। সুতি ছাড়া লিনেন, ক্রেপ জর্জেট, সফট জর্জেট, হাফ সিল্ক ইত্যাদি কাপড়ও ব্যবহার করা হয়ে থাকে এই উৎসবের পোশাক তৈরিতে।

তবে বৈশাখের পোশাক মানেই শাড়ি। টাঙ্গাইলের তাঁত, মণিপুরি শাড়ি বা ঢাকাই জামদানি বৈশাখের জন্য অনবদ্য। পাশাপাশি তসর, হালকা জর্জেট বা সিল্ক শাড়িও পরা যেতে পারে। শাড়ি বাছাইয়ের সময় মাথায় রাখতে হবে দীর্ঘ সময় বাইরে কাটানোর জন্য আরামদায়ক এবং সহজে বাতাস চলাচল করতে পারে এমন শাড়ি বেছে নেয়ার দিকে।

শাড়ি বাছাইয়ের পর ব্লাউজ কেমন হবে তা ঠিক করে নেয়ার পালা। ফ্যাশন সচেতনদের মধ্যে এবারও কনট্রাস্ট ব্লাউজ বেশ জনপ্রিয়। এছাড়াও প্রিন্টের কাপড়ের তৈরি ব্লাউজও বেশ ভালো লাগবে বর্ষবরণের আমেজে।

যারা শাড়ি পরতে চান না তারা বেছে নিতে পারেন পছন্দসই অন্য পোশাক। হাল ফ্যাশনে হাতের কাজ বা এম্ব্রয়ডারি করা পোশাকের জনপ্রিয়তা পুনরায় স্থান করে নিয়েছে। তবে এতে নতুনত্ব এনেছে গোটা পাত্তির কাজ। কামিজ বা কুর্তায় ভারি কাজের বদলে এখন ভারি কাজ করা ওড়নার প্রতিই বেশি আগ্রহী তরুণীরা। সাদামাটা বা একরঙা কামিজের সঙ্গে ভারি কাজ করা ওড়না, পুরো লুকে এনে দিচ্ছে ভিন্নতা। বেশি জমকালো নয় তবে ফ্যাশনেবল এই ট্রেন্ডটি ধরে রাখা যেতে পারে বৈশাখেও।

এছাড়া ফ্যাশনঘরগুলো স্ক্রিন প্রিন্ট, ব্লক, বাটিক ইত্যাদি মাধ্যমগুলোও বেছে নিয়েছে পোশাকের নকশায়। হাতে সেলাইয়ের পাশাপাশি এখন হ্যান্ড পেইন্টের পোশাকের চাহিদাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। সবার থেকে ভিন্নভাবে নিজেকে উপস্থাপন করার জন্য অনেকেই বেছে নিচ্ছে হ্যান্ড পেইন্টের কুর্তা বা শাড়ি।

এছাড়াও চিরাচরিত ব্লকের নকশায় লেগেছে নতুনত্বের হাওয়া। ফুল, লতাপাতা বা অন্যান্য নকশার বদলে এখন স্থান করে নিয়েছে ডুডল ভিত্তিক ব্লকগুলো। আর তাই ব্লকের ডিজাইন এখন অনেক বিস্তৃত। পেঁচা, রিকশা, বাস বা ট্রাক সবই উঠে আসছে ব্লকের নকশায়। এছাড়াও দাবারগুঁটি বা মেরেলিন মনরোর মতো জনপ্রিয় মুখও বাদ পড়েনি ব্লকের নকশার তালিকা থেকে। এই ধরনের ভিন্নধর্মী ব্লকের পোশাক চাইলে ঘুরে দেখতে হবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের কিছু পেজ।

বৈশাখি রং এখন শুধু লাল সাদাতেই সীমাবদ্ধ নয়। কমলা, মেরুন, লালচে বেগুনি, গাঢ় গোলাপি, সবুজ, নীল ইত্যাদি রংগুলোও স্থান করে নিচ্ছে বৈশাখি আয়োজনে। তাই লাল পেড়ে সাদা শাড়িই পরতে হবে এখন আর এমন কোনো কথা নেই। তবে ঐতিহ্যের সবসময়ই আলাদা স্নিগ্ধতা থাকে।

সবশেষে স্যান্ডেল বাছাইয়েও সচেতন হতে হবে। বাইরে এই দিন অনেক হাঁটতে হয়। তাই বেছে নিন নীচু ও আরামদায়ক স্যান্ডেল। উঁচু স্যান্ডেলে হাঁটতেও সমস্যা, পা ব্যথা হওয়ারও ঝুঁকি থাকে।

এবার আসা যাক মেকআপের বিষয়। মেকআপ কেমন করবেন তা বরাবরই যার-যার পছন্দের উপর নির্ভর করে। তবে যেহেতু দিনটি বেশ গরম থাকে তাই ভারি মেকআপ এড়িয়ে যাওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ হবে। চোখে হালকা করে শ্যাডো লাগিয়ে মোটা করে কাজল টেনে নিন। ঠোঁটে বুলিয়ে নিন গাঢ় লাল বা মেরুন লিপস্টিক। কপালে বড় লাল টিপ। খোঁপায় বেলিফুলের মালা গুঁজে নিলেই বৈশাখি সাজ পূর্ণতা পাবে।

তৈরি হওয়ার আগে অবশ্যই সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে হবে। নতুবা দিন শেষে আয়নায় নিজের রোদে পোড়া ত্বক দেখে বৈশাখের আনন্দই মাটি হয়ে যাবে।

শুধু বৈশাখের দিন সাজলেই চলবে না। সুন্দর মেকআপের প্রথম শর্ত হলো সুন্দর ত্বক। বেশ কিছুদিন হাতে রেখেই ত্বকের যত্ন শুরু করতে হবে। নিয়মিত ত্বক পরিষ্কার করে ত্বকোপযোগী মাস্ক ব্যবহার করুন। প্রতিরাতে ভালোভাবে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে ঘুমান। কারণ শুষ্ক ত্বকে মেকআপ বসতে চায় না। সম্ভব হলে ফেসিয়ালও করে নিতে পারেন। মেকআপ শুরুর আগে অবশ্যই স্ক্রাবার দিয়ে মুখ ম্যাসাজ করে নিতে হবে। এতে ত্বকের ময়লা ও মৃতকোষ দূর হয়ে ত্বক কোমল থাকবে।

ঘর থেকে বেরুবার আগে ব্যাগে প্রয়োজনীয় জিনিস নিয়ে নিন। সঙ্গে পানি এবং ছাতা রাখা জরুরি। সবশেষে গায়ে সুগন্ধী ছড়িয়ে, আয়নায় একবার নিজেকে দেখে বেরিয়ে পড়ুন বর্ষবরণ উৎসবে যোগ দিতে।

- বেলা দত্ত
ছবিঃ রাজিব ধর; লোকেশনঃ Soi 3
মডেলঃ জাকিয়া ঊর্মি ও তাবাসসুম লাকি